অনুচ্ছেদঃ শিশু অধিকার

play icon Listen to this article

অনুচ্ছেদ লিখন

শিশু অধিকার


বেঁচে থাকার অধিকার হলাে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মৌলিক মানবিক অধিকার। বড়দের মতাে শিশুদেরও রয়েছে মৌলিক অধিকার। তাদের রয়েছে স্বাস্থ্যকর ও শান্তিময় পরিবেশে বেঁচে থাকা ও বেড়ে ওঠার অধিকার। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ১৯৮৯ সালের ২০ নভেম্বরের অধিবেশনে গৃহীত হয় শিশু অধিকার সনদ ।. সনদটি একটি আন্তর্জাতিক চুক্তি বা কনভেনশন।

বাংলাদেশ ১৯৯০ সালের ৩ আগস্ট শিশু অধিকার সনদে স্বাক্ষর করে। জন্মসূত্রে একটি নাম ও একটি জাতীয়তার অধিকার রয়েছে প্রতিটি শিশুর। ১৯৫৯ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ শিশু সংক্রান্ত অধিকার ঘােষণা করে। এই ঘােষণার উদ্দেশ্য ছিল প্রতিটি শিশুর মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করা এবং সেই সাথে শিশুদেরকে তাদের নিজ নিজ দেশের উন্নয়নের জন্য গড়ে তােলা।

এই শিশু অধিকার সনদে বিশ্ব মানবসমাজ শিশুর জন্য যা কামনা করে তা সবচেয়ে স্পষ্ট ও পরিপূর্ণভাবে প্রতিফলিত হয়েছে। তবে বাংলাদেশে শিশু সনদগুলাে আইন হিসেবে গৃহীত হলেও এর প্রয়ােগে তেমন কার্যকারিতা পরিলক্ষিত হয় না। এখানে শিশুশ্রমের অবাধ ও অনিয়ন্ত্রিত অবস্থা বিরাজমান এবং শিশুদের স্বাস্থ্য ও শিক্ষার অধিকার তেমন সুনিশ্চিত নয়। এক কথায় বাংলাদেশ শিশু অধিকার বাস্তবায়নে এখনাে অনেক পেছনে পড়ে রয়েছে।

তাই শিশুদের জীবনযাত্রা উন্নয়নে আন্তর্জাতিক শিশু সনদগুলাে যে সুনির্দিষ্ট পথনির্দেশনা দেয় তাকে যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করে ফুলের মতাে সুন্দর ও নিস্পাপ শিশুদের মৌল-মানবিক অধিকার নিশ্চিত করতে আমাদের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

What’s your Reaction?
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0
+1
0

আপনার মতামত জানানঃ