তােমার বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত ‘পনেরােই আগস্ট জাতীয় শােক দিবস’-এর বর্ণনা দিয়ে একটি প্রতিবেদন রচনা কর

play icon Listen to this article

তােমার বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত ‘পনেরােই আগস্ট জাতীয় শােক দিবস’-এর বর্ণনা দিয়ে একটি প্রতিবেদন রচনা কর।

প্রধান শিক্ষক
পাবনা জিলা স্কুল,
পাবনা

বিষয় : পনেরােই আগস্ট জাতীয় শােক দিবস এবং বর্ণনা দিয়ে প্রতিবেদন।

জনাব,
আপনার পত্র নং ২১/ প্রতি-১১ তারিখ ৭ আগস্ট, ২০১৯ অনুসারে ‘পনেরােই আগস্ট জাতীয় শােক দিবস’ পালনের একটি প্রতিবেদন আপনার অবগতির জন্য উপস্থাপন করছি।

জাতীয় শােক দিবস-২০১৯


পনেরােই আগস্ট বাংলাদেশের জাতীয় শােক দিবস। ১৯৭৫ সালের এ দিনে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গাবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। আমাদের বিদ্যালয়ে প্রতিবছরই এ শাকাবহ দিনটি গভীর বেদনা ও শ্রদ্ধার সঙ্গে পালন করা হয়। এবারও নানা আনুষ্ঠানিকতায় ‘জাতীয় শােক দিবস- ২০১৯’ মূর্ত করে তােলা হয়েছে।

আনুষ্ঠানিকতার প্রথমেই সকাল সাড়ে ৭টায় ছিল জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করে উত্তোলন। তারপর কালাে ব্যাজ ধারণ ও শােক র‍্যালী। র‍্যালীটি জামুর্কি বাজার প্রদক্ষিণ করে স্কুল অডিটোরিয়ামের সামনে এসে শেষ হয়। এরপর আমরা বিদ্যালয় ভবনের সামনে গিয়ে সারি বদ্ধ ভাবে দাড়িয়ে যাই। আমাদের প্রধান শিক্ষক মহােদয় প্রধান অতিথি বীর মুক্তিযােগ্ধা কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তমকে সাথে নিয়ে নিচে নেমে আসেন আলােকচিত্রে ‘বঙ্গবন্ধু ও পনেরােই আগস্ট’ উদ্বোধনের জন্য।

উদ্বোধনের পর তিনি প্রতিটি আলােকচিত্র মনােযােগ দিয়ে দেখেন এবং সবাইকে দেখতে উদ্বুদ্ধ করেন। কারণ বঙ্গবন্ধুর কিশাের বয়স থেকে পনেরােই আগস্ট পর্যন্ত ধাৱাবাহিকভাবে ছবিগুলো সাজানাে ছিল এবং ছবির নিচে ক্যাপশন ছিল। এরপর শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও শুভার্থীরা সারিবদ্ধ ভাবে অডিটোরিয়ামে প্রবেশ করে যার যার আসন প্রহণ করেন। সবার দৃষ্টি মঞ্চের দিকে। সেখানে শােভা পাচ্ছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় একটি প্রতিকৃতি। অতিথিরা মঞ্চে আসন গ্রহণ করেছেন। শুরু হলাে আলােচনা।

প্রথমেই পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও গীতা পাঠ। তারপর মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন বাংলা বিভাগের শিক্ষক সাজেদুল করিম। আলােচনায় অংশ নেন দশম শ্রেণির দুজন শিক্ষার্থী মােজাম্মেল ইক ও শরীয়ল ইসলাম। এরপর পরিচালনা পরিষদের দুজন সদস্য বঙ্গবন্ধুর নানা দিক নিয়ে আলােচনা করেন। প্রধান আতিথি তাঁর ভাষণে বঙ্গবন্ধুকে ‘পিতা’ সম্বােধন করে তাঁর জীবন ও কর্মের ওপর তাৎপর্যপূর্ণ স্মৃতিচারণ করেন। তিনি বলেন, ঘাতকরা তাকে দৈহিকভাবে হত্যা করলেও তাঁর কর্মজীবন, আদর্শ ও স্বপ্নকে এদেশের মানুষ চিরকাল হৃদয়ে ধারণ করবে এবং তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়নে নিজেদের উৎসর্গ করবে। অনুষ্ঠানের সভাপতি প্রধান শিক্ষক মহােদয় সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ অনুসরণ করার মাধ্যমে সমৃদ্ধ সােনার বাংলা গড়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।


সবশেষে ছিল দেশত্ববোধক গানের অনুষ্ঠান। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা একক ও সমবেতকণ্ঠে দেশত্ববোধক গান পরিবেশন করে শ্রােতাদের মুগ্ধ করেন।

প্রতিবেদক
আবদুল্লাহ আল মনসুর
দশম শ্রেণি, রােল নং ৩।

What’s your Reaction?
+1
1
+1
0
+1
0
+1
1
+1
0
+1
0

আপনার মতামত জানানঃ

সাবস্ক্রাইব করুন...    OK No thanks